জনদূর্ভোগের অপর নাম বিশ্বনাথ-জগন্নাথপুর সড়ক

তজম্মুল আলী রাজু, বিশ্বনাথ: সীমাহীন জনদূর্ভোগের অপর নাম এখন সিলেটের বিশ্বনাথ-জগন্নাথপুর সড়ক। জনবহুল এই সড়কে পুকুরের মতো গর্তের সৃষ্ঠি হলেও দেখার কেউ নেই। জনসাধারণের দুর্ভোগের ব্যাথা দেখছে না কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘদিন ধরে এই সড়কের বাগিচাবাজার থেকে পিরেরবাজার পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার সড়কে পুকুরের মতো গর্ত হয়ে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এমন অবস্থায়ও নিরুপায় হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হাটু পরিমাণ জলে চলাচল করতে হচ্ছে যাত্রীবাহী ও মালবাহী যানবাহন। তিনমাস ধরে চলমান কাজ বন্ধ থাকায় এমন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছেন জনসাধারণ।

এছাড়াও বিশ্বনাথ সদর থেকে বাগিচাবাজার পর্যন্ত প্রায় ৬কিলোমিটার কাজ শেষ হয়েছে প্রায় তিনমাস পূর্বে। মাত্র তিন মাসের ভেতরে এই সংস্কারকৃত অংশেরও বিভিন্নস্থানে ভাঙন ধরে বড় বড় গর্তের সৃষ্ঠি হয়েছে। এতে নি¤œমানের কাজ হয়েছে বলে মন্তব্য করছেন অনেকেই। তবে এই সংস্কার হওয়া অংশের কালিগঞ্জ বাজারের সেতুর পশ্চিম মুখ থেকে দতা নামক স্থান পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার কাজ করার বাকি রয়েছে এখনও।

জানাযায়, বিশমাস পূর্বে ২০২০সালের ডিসেম্বর মাসে বিশ্বনাথ সদর থেকে জগন্নাথপুর সীমানা পর্যন্ত প্রায়ন ২৩ কোটি টাকায় ১৩ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার ও প্রসস্থকরণ কাজ শুরু করা হয়। গত ১০ মে এই কাজের মেয়াদ শেষ হয়েছে। কিন্তু বাগিচা বাজার থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার সংস্কার কাজ এখনও বাকি রয়েছে। তার মধ্যে ঠিকাদারকে ৬/৭ কোটি টাকা বিলও পরিশোধ করা হয়েছে বলে উপজেলা প্রকৌশলী সুত্রে জানাগেছে। এছড়াও কাজের মেয়াদও বাড়ানো হয়েছে বলে তিনি জানান। কিন্তু সংস্কারের বাকি অংশের কাজ না করে তিনটি মাস ধরে ঠিকাদার আছেন ঘুমে। আর দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছেন জনসাধারণ।

উপজেলা প্রেকৌশলী আবু সাইদ বলেন, গত সোমবার সিলেটে মাসিক সভায় এবিষয়ে কথা হয়েছে। কিছু দিনের ভেতরে কাজ শুরু হবে।
এব্যপারে সাব ঠিকাদার সুহেল খান বলেন, আগামি সপ্তাহে কাজ শুরু করব।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.