Sylhet Express

গোয়াইনঘাটে অটোরিকশা চালকের বস্তাবন্দী লাশ উদ্বার

0 ১৪৫

নিজস্ব প্রতিনিধি :: সিলেটের গোয়াইনঘাটে ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা চালকের বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ৩১ আগস্ট (সোমবার) ভোরে ওই চালকের বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেন তার পিতা আবুল কাসেম।

স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, গোয়াইনঘাট উপজেলার লেঙ্গুড়া ইউনিয়নের নিয়াগুল গ্রামের আবুল কাসেমের ছেলে শাহীন আহমদ (১৪) ৩০ আগস্ট (রবিবার) সন্ধ্যায় ব্যটারী চালিত অটোরিকশায় যাত্রী নিয়ে সালুটিকর- গোয়াইনঘাট সড়কে বঙ্গবীরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন।

রবিবার রাত ১০ টা পর্যন্ত বাড়িতে না ফেরায় শাহীনের পিতা আত্মীয় স্বজন নিয়ে তার খোঁজে বের হন। অনেক খোজাখুজি করে শাহীনের সন্ধান মেলেনি। ওইদিন রাত সাড়ে ১০ টার দিকে বঙ্গবীর পয়েন্টের সন্নিকটে তার অটোরিকশাটি পতিত অবস্থায় পাওয়া যায়। সে সময়ে অটোরিকশাটির ব্যাটারীসহ গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাদি ছিলনা। খোঁজা খোঁজি করে শাহীনের সন্ধান না পাওয়ায় শাহীনের পিতা ছাড়া বাকী আত্মীয় স্বজনরা রাত ১২ টার দিকে নিজ নিজ বাড়ী ফিরেন। শাহীনের পিতা সালুটিকর – গোয়াইনঘাট সড়কের আশপাশের খাল গুলোতে খোজাখুজি করেন।একপর্যায়ে সালুটিকর-গোয়াইনঘাট সড়কের কাটাখাল সেতু সংলগ্ন ছোট ব্রিজের পার্শ্ববর্তী স্থানে শাহীনের পিতা শাহীনের জুতা দেখতে পান। জুতা দেখে পার্শ্ববর্তী খালে শাহীনের বস্তাবন্দী মরদেহ চোখে পড়ে। খবর পেয়ে ৩০ আগস্ট রাত থেকেই গোয়াইনঘাট থানার একটি প্রতিনিধি দল শাহীনের সন্ধানে তদন্ত চালান।

এব্যাপারে গোয়াইনঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আহাদ বলেন, শাহীন নিখোঁজ হওয়ার খবর পেয়ে ৩০ আগস্ট রবিবার রাত থেকেই গোয়াইনঘাট থানা পুলিশের অভিযান চলে। ৩১ আগস্ট সোমবার সকালে গোয়াইনঘাট-সালুটিকর সড়কের কাটাখাল সেতু সংলগ্ন ছোট ব্রিজের নিকটবর্তী খাল থেকে শাহীনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়াও শাহীনের লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য শাহীনের লাশ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে গোয়াইনঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আহাদ নিশ্চিত করেন।

মন্তব্য
Loading...