Sylhet Express

জয়পুরহাটে স্বামী ও দুই সন্তানকে রেখে আপন বড় ভাইকে বিয়ে করলো বোন

0 ৬০৪

সমাজে কখনো কখনো এমন কিছু নেক্কারজনক ঘটনা ঘটে , যা স্তম্ভিত করে যেকোন সুস্হ চিন্তাধারার মানুষকে । সম্প্রতি জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল উপজেলা এমনই এক ঘটনা সাড়া ফেলেছে পুরো এলাকাজুড়ে। ভাই বোনের পবিত্র সম্পর্ককে কেউ যেন এমন কালিমা লেপতে পারে, তা কেউ আগে ভাবতেও পারেনি। বাবার পরেই যে বড় ভাইয়ের কাছে একটা বোন সবচেয়ে সুরক্ষিত , সেই বড় ভাইয়ের সাথেই অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে অতঃপর তার সাথেই ঘর বাঁধতে পালিয়ে গেল বোন।

তিনি ২ সন্তানের জননী। এক ছেলের বয়স ১০ আর অন্যটির বয়স ৭ ,তবুও স্বামীকে তালাক দিয়ে আপন বড় ভাইকে বিয়ে করেছেন এক গৃহবধু! জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল উপজেলার নিশ্চিন্তা তারাকুল গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

উপজেলার নিশ্চিন্তা তারাকুল গ্রামের আব্দুর রশিদের ঔরশজাত চার সন্তানের মধ্যে ২ ছেলে মোঃ সাজু মিয়া ও মোঃ সিজু মিয়া এবং ২ মেয়ে মোছাঃ জাকিয়া সুলতানা ও রাজিয়া সুলতানা। এদের মধ্যে রাজিয়া সুলতানা ও সিজু মিয়া অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন।

জানা যায়, ছোট মেয়ে রাজিয়া সুলতানাকে জয়পুরহাট বিশ্বাস পাড়ার মৃত বাবুল হোসেনের ছেলে মোঃ মজনু হোসেনের সহিত পারিবারিকভাবে বিবাহ দেন পিতা আব্দুর রশিদ। মজনু হোসেন বর্তমানে জয়পুরহাট পৌরসভার এক জন পিয়ন হিসাবে কর্মরত।

সে জানতো না তার স্ত্রী রাজিয়ার সঙ্গে তার আপন বড় ভাই সিজু হোসেনের অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। তার স্ত্রীর ঘরে রিয়াদ ও রাকিব নামে দুই ছেলে রয়েছে। তার দুই ছেলে মাদরাসায় লেখাপড়া করে। এই অবস্থায় রাজিয়া তার আপন বড় ভাই সিজু হোসেনের সঙ্গে গত ১৪ অক্টোবর বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়।

তিনি পাগল হয়ে তার স্ত্রীকে খুঁজতে থাকেন। একপর্যায়ে তিনি সন্ধান পান শিবগঞ্জের ভাইয়ের পুকুর এলাকায় সৈয়দপুর গ্রামে কাবেজের ছেলে বাবলু মিয়ার বাড়িতে এক প্রেমিক যুগল আশ্রয় নিয়েছে। তার সূত্র ধরেই তিনি ওই বাড়িতে রিজিয়া ও সিজু হোসেনের অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হন।
রাজিয়ার বাবা আব্দুর রশিদ বলেন, বগুড়ার শিবগঞ্জের আটমূল ইউপি চেয়ারম্যান মোজাফ্ফর হোসেনকে বিষয়টি অবগত করলে তার তৎপরতায় বাবলুর স্ত্রীকে গত বৃহস্পতিবার পরিষদে হাজির করা হয়। সেখানে বাবলুর স্ত্রী জানায় রিজিয়া ও সিজু হোসেন উভয়ে শিবগঞ্জের ময়দান হাটা ইউপির কাজী মো. মাহফুজার রহমানের কাছে উপস্থিত হয়ে দুই লাখ টাকা দেন মোহরে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।

শুধু তাই নয় তারা নোটারি পাবলিক গাইবান্দা কার্যালয়ে অ্যাফিডেভিট এর মাধ্যমে বিয়ের ঘোষণা দেয় এবং তার আগের স্বামীকে তালাক দিয়ে নিজ আপন বড় ভাইয়ের সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হয়। বর্তমানে তারা কিচক ইউপির হরিপুর গ্রামে অবস্থান নিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমি আমার দ্বিতীয় মেয়ে রাজিয়াকে পারিবারিকভাবে ত্যাজ্য করলাম।

মন্তব্য
Loading...