সিলেটে সন্ত্রাসী সরওয়ারের ত্রাসের রাজত্ব

0 ১,৪৮৬

স্টাফ রিপোর্টার :- সিলেটে অপরাধীদের গডফাদার জৈনেক ছাত্রলীগ নেতা সরওয়ার হুসেন । সে গুটা সিলেটে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে । চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, অপহরণ কর্মকান্ড ছাড়াও সে মাদক ব্যবসা ও অস্ত্র ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।
সিলেটের আম্বরখানায় পুলিশের উপর হামলার ঘটনা ও তরুণ ব্যবসায়ী করিম বক্স মামুন হত্যাকান্ডে জড়িত এজাহারনামীয় আসামি ও হত্যাকান্ডের মূলহোতা বলে চিহ্নিত এই ছাত্রলীগ ক্যাডার সরওয়ার হুসেন । ছাত্রলীগের বিভিন্ন মহড়ায় ধারালো অস্ত্র নিয়ে প্রকাশ্যে নগরীতে মহড়া দেয় । যতোদূর জানাযায়, সাবেক এ ছাত্রলীগ নেতা সরওয়ার নগরীর দক্ষিণ সুরমার গোটাটিকর এলাকার বাসিন্দা।
গোটাটিকর এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা থেকে শুরু করে অফিস পাড়ার কর্তা ব্যাক্তিগণ কেউই তার চাঁদাবাজি থেকে রক্ষা পায়নি।
একাধিক সুত্র জানায়, গোটাটিকর এলাকার এমন কোনো ব্যবসায়ী নেই যাদের নিকট থেকে সরওয়ার চাঁদা আদায় করে না। বাসা ও দেওয়াল নির্মাণ করতে গেলেও তাকে চাঁদা দিতে হয়। ভয়ে কেউ কখনও প্রতিবাদ বা প্রতিরোধ করার সাহস পায় না। দীর্ঘদিন ধরে সরওয়ার পাসপোর্ট অফিসে দালালী, সিলেট শিক্ষা অফিস, আবহাওয়া অফিস, সেটেলমেন্ট অফিস সহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে টেন্ডার ছিনতাই সহ চাঁদাবাজি তার নিত্য নৈমত্তিক ব্যাপার । এছাড়া বিভিন্ন স্থানে জায়গা দখল ও চাদাঁ আদায়ে ভাড়া করে নেওয়া হয় সন্ত্রাসী সরওয়ারকে। সম্প্রতি সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এক চিকিৎসককে ‘ধর্ষণের’ হুমকি দিয়েছেন স্থানীয় ঐ ছাত্রলীগ নেতা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে সমালোচনার ঝড় চলছে।চিকিৎসককে ছাত্রলীগ ক্যাডার সরওয়ার বলেন, একবার বাইরে বের হ, রেইপ করে ফেলব। আমার পা ধরে তোকে মাফ চাইতে হবে।’ এ সময় তিনি কোমর থেকে ছুরি বের করে ওই নারী চিকিৎসককে হত্যার হুমকি দেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। তবে ‘মাথাগরম’ হয়ে যাওয়ায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন হুমকিদাতা ওই ছাত্রলীগ নেতা। গত বৃহস্পতিবার ( ৯ মে) দুপুরে এই ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে হাসপাতালের বাইরে এসে চিকিৎসকরা কর্মবিরতিও পালন করেন। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে তারা রাত সাড়ে ১০টার দিকে কাজে যোগ দেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হুমকিদাতা ওই ছাত্রলীগ নেতার নাম সারোয়ার হোসেন চৌধুরী। তিনি সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। সারোয়ার সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ও কাউন্সিলর আজাদুর রহমানের অনুসারী। ভুক্তভোগীরা সরওয়ার ও তার সহযোগীদের গ্রেফতার করে বিচারের মুখোমুখি করার জন্য পুলিশ প্রশাসনের উর্দ্ধতন মহল ও সরকারদলীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

মন্তব্য
Loading...