নগরীর বাণিজ্যিক এলাকায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছে জুয়ার আসর,প্রশাসনের নীরব ভূমিকা

0 ২৮৩

নিজস্ব প্রতিবেদক::       সিলেট নগরীর প্রসিদ্ধ বাণিজ্যিক এলাকা কালীঘাট, আর এর সুবাদে জনবহুল এই স্থানটিতে বিভিন্ন জেলার কর্মজীবী মানুষের বসবাস, বর্তমানে এই বাণিজ্যিক এলাকাটির দুটি স্থানে প্রতিদিন বড় ধরনের জুয়ার আসর বসানো হয়। ‍পূর্বেও দীর্ঘদিন যাবৎ এখানে জুয়ার আসর বসলেও বর্তমানে তার পরিষর বৃ্দ্ধি পেয়েছে। আর এসকল জুয়ার আসরের নেতৃত্বে রেয়েছে কতিপয় দূর্নীতিবাজ য়েকজন পুলিশ সদস্য। জানা যায়, কালীঘাট ছড়ারপাড়ের নামধারী ছাত্রদল নেতা শরিফ আহমদের এই দুই জুয়ার আসরে দৈনিক লক্ষ লক্ষ টাকা হারাচ্ছে কালীঘাটের বিভিন্ন দোকানের দরিদ্র শ্রমিকরা। শরিফ আহমদের বড় ভাই কালাম আহমদ নিজেকে স্থানীয় তাঁতীলীগ নেতা পরিচয় দিয়ে ছড়ারপাঁড় ,মাছিমপুর,এলাকায় প্রভাব খাঁটিয়ে নীরিহ জনগনকে তটস্থ করে রাখে,আর সেই সুবাদে শরিফ আহমদ নিজেই নদীর ভরাট অংশ দখল করে একটি টিনের ঘর তৈরি করে বেপরোয়া ভাবে চালিয়ে যাচ্ছে সর্বনাশা জুয়ার আসর। আর প্রতিদিন দরিদ্র শ্রমিকদের লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। শরীফের জুয়ার আসরে থাকছে ভারতীয় শিলং তীর ও জান্ডুমান্ডু নামক জুয়া। এসকল জুয়া থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে শরিফ। মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে এসবের নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছে সিলেট কোতোয়ালী মডেল থানার অসাধু কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা ও বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁঁড়ির সদস্যরা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধীক স্থানীয় ব্যাবসায়ী জানান, শরিফ কালীঘাট এলাকায় সরকারি জায়গা দখল করে দুইটি ঘর নির্মান করে ওই ঘরে জুয়ার আসর চালায়। পুলিশ দৈনিক এসে চাঁদা নিয়ে যায়। যার কারনে কালীঘাটের ব্যবসায়ীরা কোন প্রতিবাদ করতে পারেননা। যদি কেউ প্রতিবাদ করে তাহলে শরিফ পুলিশ দিয়ে মামলায় ঢুকিয়ে দিবে বলে হুমকি প্রদান করে।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা এখন একদম নিরুপায় হয়ে প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন। সেই সাথে ওই জুয়াড়িদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে তাদের শাস্তির দাবী জানান।

মন্তব্য
Loading...